নওগাঁয় এসপি’র ফোনে খুদে বার্তা, অপহরনের স্বিকার ছাত্রী উদ্ধার সহ ২ জন আটক

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টারঃ অপহরনের স্বিকার এক স্কুলছাত্রী (এসএসসি পরীক্ষার্থী) সুযোগ বুঝে জেলা পুলিশ সুপার এর মুঠোফোনে খুদে বার্তার মাধ্যমে পাঠিয়ে দিলেন তথ্য। পুলিশ সুপার মহোদয়ের দিকনির্দেশনায় মাত্র ৩০ মিনিটের মধ্যেই (ভিকটিম) অপহরনের স্বিকার ছাত্রীকে উদ্ধার সহ ২ জনকে যেভাবে আটক করলো গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ।

অপহরনের শিকার স্কুলছাত্রী (এসএসসি পরিক্ষার্থী) সুযোগ পেয়ে ১২ অক্টোবর মঙ্গলবার সকালে নওগাঁর সুযোগ্য জেলা পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আবদুল মান্নান মিয়া বিপিএম মহোদয় এর মুঠোফোনে খুদে পাঠিয়ে অপহরনের ঘটনা (তথ্য) জানালে, পুলিশ সুপার মহোদয় এর দিকনির্দেশনায় নওগাঁ গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের একটি চৌকস দল দ্রুত অভিযান চালিয়ে মাত্র ৩০ মিনিটের মধ্যেই অপহরনের স্বিকার ভীকটিম ছাত্রীকে উদ্ধার সহ ২ জনকে আটক করেছেন।

অভিযানের মহূর্তে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মূল অপহরনকারী যুবক মোঃ মাহমুদুল হাসান রকি (২৬) পালিয়ে যাওয়ায় অপহরনকারীর পিতা ও মাতাকে আটক করা হয়। আটককৃতরা হলেন, গাংজোয়ার গ্রামের মোজাম্মেল হক (৫৫) ও তার স্ত্রী মোছাঃ তাছলিমা বেগম (৫২) নওগাঁ গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের প্রেস বিফিং এ জানায়, গত ৩ অক্টোবর বিকাল ৩ টার সময় এসএসসি পরীক্ষার্থী মেস থেকে বাড়ী যাবার উদ্দেশ্যে বের হলে নওগাঁর মহাদেবপুর থানার কদমতলী এলাকা থেকে আসামী মোঃ মাহমুদুল হাসান রকি (২৬) তাকে অপরহণ করে তার বাড়ীতে নিয়ে এসে ৯ দিন আসামীর বাড়ীতে আটক রেখে ধর্ষন এবং শারীরিক নির্যাতন করে। ভিকটিম সুযোগ বুঝে আসামীর মোবাইল থেকে পুলিশ সুপার নওগাঁ জনাব প্রকৌশলী আবদুল মান্নান মিয়া বিপিএম মহোদয়কে এসএমএস এর মাধ্যমে জানান যে, আসামি মোঃ মাহমুদুল হাসান রকি তাকে জোর করে অপহরণ করে নিজ বাড়ী গাংজোয়ার এনে আটকে রেখেছে এবং তাকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে।

তাৎক্ষণিক জেলা পুলিশ সুপার মহোদয় এর দিকনির্দেশনায় অভিযান চালিয়ে মাত্র ৩০ মিনিটের মধ্যেই ভিকটিমকে উদ্ধার এবং অপহরণকারীর বাবা-মা দু’ জনকে আটক করা হয়। মঙ্গলবার সন্ধায় আটককৃতদের মহাদেবপুর থানায় হস্তান্তর করা হয়। সংবাদ সংগ্রহকালে মঙ্গলবার রাতে এবিষয়ে মহাদেবপুর থানায় মামলা প্রক্রিয়াধীন বলে নিশ্চিত করেছেন পুলিশ।