ধামইরহাটে ১৫ঘন্টার মধ্যে অপহৃত কিশোরী উদ্ধার

নওগাঁর ধামইরহাট থানা পুলিশ মামলার ১৫ ঘন্টার মধ্যে অপহৃত কিশোরীকে উদ্ধার করেছে। রাত ৯টায় থানায় অভিযোগ দায়েরের পর রাতেই অভিযানে নেমে পড়ে থানা পুলিশ। রাতেই অপহরণকারীর বাবা ও এক সিএনজি চালককে আটক করে। তাদের দেয়া তথ্য যাচাই বাছাই করে ওই কিশোরীকে উদ্ধারে নামে পুলিশ। অবশেষে মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টায় তাদেরকে ঢাকার এয়ার পোর্ট এলাকা থেকে আটক করা হয়।

ধামইরহাট থানায় অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, কালুপাড়া গ্রামের সনাতন হিন্দু ধর্মের জনৈক ব্যক্তির স্কুল পড়ুয়া মেয়ে (১৪) গত ১১ সেপ্টেম্বর শুক্রবার রাত ৮টার দিকে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বাড়ী থেকে বের হয়।

এ সময় পূর্ব থেকে উৎপেতে থাকা একই এলাকায় ছোট শিবপুর গ্রামের আবু বক্করের ছেলে মেহেদী হাসান (২৮) তার ৫জন সহযোগিকে নিয়ে মেয়েটিকে জোরপূর্বক সিএনজিতে উঠিয়ে নিয়ে যায়। অনেক খোঁজাখুজির পর মেয়ের মা গত সোমবার রাত ৯টার দিকে ৬জনকে আসামী করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই কিশোরী স্থানীয় জগদল আদিবাসী স্কুল ও কলেজের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী।

এব্যাপারে ধামইরহাট থানার অফিসার ইনচার্জ  আব্দুল মমিন বলেন, মেয়ের মা বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে মামলার ২নং আসামী মেহেদী হাসানের বাবা আবু বক্কর ও সিএনজি চালক রিপন (২৫) কে আটক করা হয়।

তাদের দেয়া তথ্য অনুসন্ধান করে ওই কিশোরী ও মূল আসামী মেহেদী হাসানকে ঢাকার উত্তরার তুরাগ থানা পুলিশ এয়ার পোর্টের পশ্চিম পার্শে অনুদা নামক স্থান থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। ভিকটিম ও আটক অপহরণকারীকে ধামইরহাটে নেয়ার জন্য মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা রওনা দিয়েছেন।