নিজের মহাকাশযানে সফল ভ্রমণ শেষে পৃথিবীতে রিচার্ড ব্র্যানসন

ব্রিটিশ ধনকুবের ব্যবসায়ী রিচার্ড ব্র্যানসনকে নিয়ে ভার্জিন গ্যালাকটিক নামে একটি যান মহাকাশের দ্বারপ্রান্তে ভ্রমণের পর নিরাপদে পৃথিবীতে ফিরে এসেছে। এটি যুক্তরাষ্ট্রে নিউমেক্সিকোতে অবতরণ করেছে। এক ঘন্টাব্যাপী এই যাত্রায় ইউনিটি-২২ নামের মহাকাশযানটি ঘণ্টায় তিন হাজার কিলোমিটারেরও বেশি গতিতে উড়ে গেছে। এসময় কয়েক মিনিট ধরে রকেটের ছয় যাত্রী ভরশূন্যতার অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। খবর বিবিসির।

ব্র্যানসন বলেন, এই পরীক্ষামূলক ফ্লাইটের ভেতর দিয়ে মহাকাশে পর্যটনের নতুন এক যুগের সূচনা হবে। আগামী বছর বাণিজ্যিকভাবে এ ধরণের পর্যটন শুরুর কথা রয়েছে। তবে মহাশূন্যে যারা বেড়াতে যেতে চাইবেন তাদের বেশ অর্থবান হতে হবে।

মহাশূন্যে কয়েক মিনিটের অভিজ্ঞতার জন্য প্রতিটি টিকেটের ব্যয় পড়বে আড়াই লাখ ডলার। রিচার্ড ব্র্যানসনের মতোই আরেকজন বিলিওনেয়ার উদ্যোক্তা অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোসও এ মাসের শেষের দিকে তার কোম্পানির তৈরি রকেটে চড়ে মহাশূন্যে উড়ে যাবেন বলে কথা রয়েছে।

তবে মহাশূন্যে অভিযানের এই পথটি রিচার্ড ব্র্যানসনের জন্য সহজ ছিল না। তিনি ২০০৪ সাল থেকে মহাশূন্যে বাণিজ্যিক ভ্রমণ চালু করার প্রচেষ্টা চালিয়ে আসছেন। কথা ছিল ২০০৭ সালেই এই ভ্রমণ চালু হবে। কিন্তু রকেটে প্রাণঘাতী এক বিস্ফোরণের পর উদ্যোগটি মাঝপথে থেমে যায়।

তিনি বলেন, ছোটবেলা থেকেই মহাকাশ ভ্রমণের শখ ছিল আমার। ব্র্যানসন বলেন, আমি আশা করছি আগামী ১০০ বছরের মধ্যে লক্ষ লক্ষ মানুষ মহাশূন্যে সফর করতে পারবেন। তিনি যে যানে করে মহাকাশে ভ্রমণ করেছেন তা তৈরি করতে তার কোম্পানির ১৭ বছর সময় লেগেছে।

ব্র্যানসনের সঙ্গে ওই মহাকাশযানে দু’জন পাইলট ছিলেন। এরা হলেন, ডেভ ম্যাকে এবং মাইকেল মাসুসি। এছাড়া আরও তিন সহযাত্রী হলেন, বেথ মোসেস, কোলিন বেনেট এবং সিরিশা বানডলা।