লকডাউন : বৃষ্টিতে কিছুটা ঢিলেঢালাভাব চেকপোস্টে

করোনা সংক্রমণ রোধে চলমান লকডাউনের সপ্তম দিনে রাজধানীতে বৃষ্টির কারণে কিছুটা ঢিলেঢালাভাবে বিধিনিষেধ পালন হতে দেখা গেছে। কোনো কোনো সড়কে আবার যানবাহনের লম্বা যানজটও তৈরি হয়েছে। এদিকে, রাত থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে দুপুরেও।

বুধবার (৭ জুলাই) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ঢাকার বিভিন্ন সড়ক ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, গণপরিবহন না চললেও আগের দিনগুলোর তুলনায় আজ সড়কে মানুষ, রিকশা, যানবাহন অনেক বেড়েছে। বৃষ্টি এবং লকডাউন উপেক্ষা করে কাজে বের হওয়া মানুষের সংখ্যা অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেক বেশি।

বৃষ্টির কারণে কোথাও কোথাও চেকপোস্টে পুলিশের উপস্থিতি কম ছিল। তবে কিছু চেকপোস্টে বৃষ্টির মধ্যেও পুলিশ সদস্যরা বিভিন্ন যানবাহনে যাতায়াত করা যাত্রীদের জিজ্ঞাসাবাদ করছেন। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া যারা বিনা কারণে বাইরে বের হচ্ছেন তাদেরকে আটক ও ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানাও করা হচ্ছে।

রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে নিয়মিত বসানো হয়েছে পুলিশের চেকপোস্ট। সেখানে আটজন পুলিশ সদস্যকে দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে। মাঝে মাঝে দু-একটি ব্যক্তিগত গাড়ি ও রিকশা আটকে যাত্রীদের কাগজপত্র দেখতে চাওয়া হচ্ছে। খুব একটা কারণ জিজ্ঞেস না করে কাগজপত্র ঠিক থাকলে যেতে দেয়া হচ্ছে।

সেখানে দায়িত্বরত ট্রাফিক সার্জেন্ট আবিদ হাসানের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, ‘ভোর থেকে এখানে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। যাদের সন্দেহ হচ্ছে তাদের আটক করে কাগজপত্র দেখে ছেড়ে দেয়া হচ্ছে। গাড়ির কাগজ ঠিক না থাকলে মামলা দেয়া হচ্ছে।’

ফার্মগেটে দায়িত্বরত ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আজাদ রহমান বলেন, ‘আমরা সর্বাত্মকভাবে চেষ্টা করে যাচ্ছি। লকডাউনে ঘর থেকে বের হলেই করা হচ্ছে জরিমানা। প্রতিদিন ৫ থেকে ৭ লাখ টাকা জরিমানা করা হচ্ছে। এই জরিমানা তো সাধারণ জনগণ দিচ্ছেন। যারাই লকডাউনে কারণ ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছেন, প্রশাসনের নজরে এলেই করা হচ্ছে জরিমানা। সকাল থেকে সাতটি মামলা করা হয়েছে।’

jagonews24

ধানমন্ডি-৩২ নম্বরে চেকপোস্ট দেখা গেলেও সেখানে দেখা যায়নি দায়িত্বরত কোনো পুলিশকে। এতে নির্বিঘ্নে যানবাহন ও মানুষ যাতায়াত করছে।

এদিকে, গতকাল মঙ্গলবার (৬ জুলাই) কঠোর লকডাউনের ষষ্ঠ দিনে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে বাইরে বের হয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) হাতে গ্রেফতার হয়েছেন ৪৬৭ জন। ৩০৫ জনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা করা হয়েছে দুই লাখ ২৭ হাজার ৪৮০ টাকা। এছাড়া ট্রাফিক বিভাগ কর্তৃক এক হাজার ৮৭টি গাড়ির বিরুদ্ধে মামলায় জরিমানা করা হয়েছে ২৫ লাখ ২৯ হাজার টাকা। আজ পর্যন্ত রাজধানীতে মোট গ্রেফতার হয়েছেন তিন হাজার ৮৫ জন।