আজও বৃষ্টিমুখর থাকবে সারাদেশ

আজ বৃহস্পতিবারও সারাদেশ আষাঢ়ের বৃষ্টিতে মুখর থাকবে। মৌসুমী বায়ুর সক্রিয়তায় গত দু-দিন ধরে সারাদেশে বৃষ্টি বেড়েছে। কোথাও কোথাও বৃষ্টি অতিভারি হয়ে ঝরছে। বৃষ্টির এই প্রবণতা আজও অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই মেঘের আনাগোনা ঢাকার আকাশে। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শুরু হয় বৃষ্টি। বেলা যত গড়াচ্ছে বৃষ্টিকে সঙ্গী করে মেঘের সম্মেলন যেন বেড়েই যাচ্ছে। দুপুর ১২টার দিকে হঠাৎই সন্ধ্যার আবহ নামে রাজধানীতে।

আবহাওয়াবিদ এ কে এম রুহুল কুদ্দুস বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে জানান, ময়মনসিংহ, ঢাকা, রাজশাহী, চট্টগ্রাম, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রংপুর ও খুলনা বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতিভারি বর্ষণ হতে পারে।

এ সময়ে সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকতে পারে। আগামী তিন দিনের মধ্যে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা কমতে পারে বলেও জানান এই আবহাওয়াবিদ।

তিনি বলেন, মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় এবং এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

বুধবার সকাল ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অতিভারি বৃষ্টি হয়েছে। এ সময় সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে চট্টগ্রামে, সেখানে ২১৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এছাড়া কুমিল্লায় ১৮৬, ফেনীতে ১২০, হাতিয়ায় ১২৩, কুতুবদিয়ায় ১০৪, সীতাকুণ্ডে ১৩২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

এ সময় ঢাকায় ১৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। বুধবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল যশোরে ৩৫ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ভোলায় ২৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।