এবারও ডিএনসিসিতে ডিজিটাল কোরবানির হাট

দেশে করােনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় অনলাইনে ‘ডিজিটাল কোরবানির হাট’ বসানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। ইতোমধ্যে সংস্থাটি ই-কমার্স অ্যাসােসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) ও বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসােসিয়েশনের (বিডিএফএ) সঙ্গে একটি চুক্তি করেছে। করোনার কারণে গত বছরও ডিএনসিসিতে ডিজিটাল কোরবানির হাট বসেছিল।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ডিএনসিসি কার্যালয় গুলশানে সােমবার (২৮ জুন) এক অনুষ্ঠানে ওই চুক্তিতে সই করেন ডিএনসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা মাে. মােজাম্মেল হক, ই-ক্যাবের জেনারেল সেক্রেটারি আবদুল ওয়াহেদ ও বিডিএফের সভাপতি মাে. ইমরান হােসেন।

চুক্তি অনুযায়ী, ডিজিটাল হাটের মাধ্যমে বিক্রি হওয়া কোরবানির পশু জবাইয়ের স্থান নির্ধারণ, পশু সংরক্ষণের নিরাপত্তা প্রদান, পর্যাপ্ত পানি, পয়ােনিষ্কাশন, বিদ্যুৎ, পরিচ্ছন্নতাকর্মী নিয়ােগ এবং পশুর স্বাস্থ্য পরীক্ষায় পশু চিকিৎসক নিয়ােগের বিষয়গুলাে ডিএনসিসি নিশ্চিত করবে। ডিএনসিসি, ই-ক্যাব ও বিডিএফএর যৌথ ব্যবস্থাপনায় এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ ও এটুআইয়ের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ডিজিটাল পশুর হাট বসবে। হাটের ওয়েব ঠিকানা www.digitalhaat.net।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ২১ জুলাই দেশে ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। সে অনুযায়ী গত ১৯ মে ১০টি অস্থায়ী পশু হাট ইজারা দিতে পত্রিকায় দরপত্র আহ্বান করেছিলেন ডিএনসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক। হাটগুলো হলো- উত্তরা ১৭ নম্বর সেক্টর এলাকায় অবস্থিত বৃন্দাবন থেকে উত্তরার দিকে বিজিএমইএ পর্যন্ত খালি জায়গা; ভাটারা (সাঈদনগর) পশুর হাট; কাওলা শিয়ালডাঙ্গা সংলগ্ন খালি জায়গা; ৪৩ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্বাচল ব্রিজ সংলগ্ন মস্তুল ডুমনী বাজারমুখী রাস্তার উভয় পাশের খালি জায়গা; উত্তরখান মৈনারটেক শহীদনগর হাউজিং প্রকল্পের খালি জায়গা; ভাষানটেক রাস্তার নির্মাণাধীন অব্যবহৃত ও পরিত্যাক্ত অংশ এবং পাশের খালি জায়গায়, বাড্ডা ইস্টার্ন হাউজিং ব্লক-ই, সেকশন-৩ এর খালি জায়গা; উত্তরা ১৫ নম্বর সেক্টরের ১ নম্বর ব্রিজের পশ্চিমের অংশ এবং ২ নম্বর ব্রিজের পশ্চিমে গােলচত্বর পর্যন্ত সড়কের ফাঁকা জায়গা; মিরপুর সেকশন-৬ ইস্টার্ন হাউজিংয়ের খালি জায়গা এবং ঢাকা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের খেলার মাঠ হাটের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

এ ছাড়া গাবতলীর স্থায়ী পশুহাটে কোরবানির পশু বেচাকেনা হবে। তবে করোনা পরিস্থিতিতে হাটের সংখ্যা কমতে পারে বলে জানিয়েছেন ডিএনসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা মাে. মােজাম্মেল হক।