মে মাসে শনাক্ত সাড়ে ৪১ হাজার, জুন শেষ না হতেই ৮৭ হাজার

দেশে করোনা মহামারি শুরুর পর গত দেড় বছরের গড়ের চেয়ে এবার সংক্রমণের হার অনেক বেশি। সর্বশেষ গত ২৪ ঘণ্টায় পাঁচ হাজার ২৬৮ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়। শনাক্তের হার ২১ দশমিক ৫৯ শতাংশ। এ হিসাবে গত দেড় বছরের গড় সংক্রমণের চেয়ে রোববার (২৭ জুন) সংক্রমণের হার অনেক বেশি ছিল।

এদিন স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনা সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সরকারি ও বেসরকারি ৫৫৪টি ল্যাবরেটরিতে ২৪ হাজার ৬২৮টি নমুনা সংগ্রহ ও ২৪ হাজার ৪০০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ নিয়ে মোট নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা দাঁড়ালো ৬৫ লাখ ৬ হাজার ৭৮১টি। নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ২১ দশমিক ৫৯ শতাংশ। মোট পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬৫ শতাংশ।

এছাড়া ২৭ জুন পর্যন্ত সর্বমোট ৬৫ লাখ ৬ হাজার ৭৮১টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা আট লাখ ৮৮ হাজার ৪০৬ জন। মোট পরীক্ষা ও শনাক্তের হিসেবে সংক্রমণের হার ১৩ দশমিক ৬৫ শতাংশ।

সোমবার (২৮ জুন) স্বাস্থ্য অধিদফতরের কোভিড-১৯ পরিস্থিতি নিয়ে ভার্চুয়াল স্বাস্থ্য বুলেটিনে অধ্যাপক ডা. রোবেদ আমিন বলেন, শুধু সংক্রমণ নয় মৃত্যুহারও বেড়েছে। গত দেড় মাস আগেও প্রতি ১০০ জনে ১ দশমিক ৫ শতাংশ মারা গেলেও বর্তমানে তা ১ দশমিক ৬০ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

তিনি জানান, যেখানে গোটা মে মাসে মাত্র ৪১ হাজার ৪০৮ জন রোগী পাওয়া গেছে, সেখানে জুন মাস শেষ হওয়ার আগেই ৮৭ হাজার ৮৬৬ জন রোগী পাওয়া গেছে।

সংক্রমণ ও মৃত্যুর কারণ হিসেবে তিনি জনগণের স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চলার প্রবণতা ও ভারতীয় ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়াকে মনে করছেন।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়।