৭ সেপ্টেম্বর থেকে ঘাটারচর-কাঁচপুর রুটে কোম্পানির বাস চলবে : তাপস

আগামী ৭ সেপ্টেম্বর থেকে কেরানীগঞ্জের ঘাটারচর থেকে নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুর রুটে কোম্পানির মাধ্যমে বাস পরিচালনা করা হবে বলে জানিয়েছেন ‘বাস রুট রেশনালাইজেশন’ কমিটির প্রধান ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস।

তিনি বলেন, ১ এপ্রিল থেকে এই রুটে কোম্পানির মাধ্যমে বাস চলার কথা ছিল। কিন্তু করোনা মহামারির কারণে পূর্বনির্ধারিত সময়ে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা যায়নি।

বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) দুপুরে রাজধানীর গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফেরানো ও যানজট নিরসনে গঠিত ‘বাস রুট রেশনালাইজেশন’-বিষয়ক কমিটির ১৭তম সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মেয়র তাপস বলেন, ঘাটারচরে একটি বাস ডিপো নির্মাণ করার জন্য আমরা দুই মেয়র জায়গা পরিদর্শন করেছি। সেখানে আমরা প্রায় ১২ বিঘার মতো জমি শনাক্ত করতে পেরেছি। সেই জমি অধিগ্রহণ করে সেখানে একটি বাস ডিপো নির্মাণ করা হবে। আমরা খুব অল্প সময়ের মধ্যে এর কার্যক্রম শুরু করবো। এছাড়াও যাত্রীদের জন্য বাস-বে ও যাত্রী ছাউনি নির্মাণের জন্য পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, যারা বাস পরিচালনা করবেন তাদের সঙ্গে চুক্তির খসড়া প্রস্তুত করা হয়েছে। সেই চুক্তি সংক্রান্ত একটি নীতিমালাও তৈরি করা হয়েছে। আগামী ৮ জুলাইয়ের মধ্যে চুক্তি চূড়ান্ত করতে বাস মালিক পক্ষ ও বিশেষজ্ঞ কমিটির সঙ্গে বসে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আগামী ২৯ জুলাই সেই চুক্তি সম্পাদন হবে।

ডিএসসিসি মেয়র বলেন, ঢাকার বাইরে চারটি জায়গায় আন্তঃজেলা বাসগুলোর জন্য টার্মিনাল ও ডিপো নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়। সেই কার্যক্রম যেন দ্রুত করা যায় সেজন্য আমাদের বিশেষজ্ঞ প্যানেল প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। টার্মিনালগুলোর জন্য নির্ধারিত জায়গাগুলো হচ্ছে- হেমায়েতপুর, ভাটুরিয়া ও কেরানীগঞ্জ। রুটগুলোতে বাস কোম্পানিগুলোর জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে।

অনুষ্ঠানে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, রাজধানী ঢাকায় বর্তমানে এক হাজার ৬৪৬টি বাস কোনো ধরনের রুট পারমিট ছাড়া চলাচল করছে। এসব বাসের জন্য নগরীতে সীমাহীন যানজট লেগে থাকে। এই বাসগুলো চলতে দেয়া হবে না। আগামী জুলাই থেকে দুই সিটি করপোরেশন ও বিআরটিএ মিলে অভিযান শুরু করবো।