লালমনিরহাটে রেল প্রকৌশল বিভাগে টিএলআর পদে নিয়োগে দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে

মোঃ মাসুদ রানা রাশেদ: লালমনিরহাট রেল প্রকৌশল বিভাগে ৮৪জন টিএলআর নিয়োগে প্রায় ৩কোটি টাকা দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে দফতরটির এইএন সহকারী প্রকৌশলী সাইদুর রহমান খন্দকারের বিরুদ্ধে।

জানা যায়, লালমনিরহাট রেল প্রকৌশল বিভাগে টিএলআর পদে ৮৪জন নিয়োগ দিবে। সেই নিয়োগ সরকারী নিয়ম অনুযায়ী আগের যারা এই দফটির টিএলআর (মাস্টার রোল) কর্মরত ছিল তাদের পাওয়ার কথা থাকলেও তা না করে সরকারি আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে লালমনিরহাট জেলার ৫টি (লালমনিরহাট সদর, আদিতমারী, কালীগঞ্জ, হাতীবান্ধা, পাটগ্রাম) উপজেলায় দালালের মাধ্যমে মোটা অংকের ঘুষের বিনিময়ে নতুন করে ৮৪জনের নামের তালিকা তৈরি করে টিএলআর পদে নিয়োগ দিয়েছেন দফতরটির উপ-প্রকৌশলী সাইদুর রহমান খন্দকার।
আর শাক দিয়ে মাছ ঢাকতে আগের মাস্টার রোল লিস্টে পুরাতনদের নামের পাশে লিখে দিয়েছেন কাগজ উই পুকায় কেটেছে।

এই ঘটনা প্রকাশ হওয়ার পর টক অব দ্য টাউনে পরিনত হয়েছে। লালমনিরহাটে নিয়োগ বাণিজ্য এর আগে এতো টাকার কোন ঘটনা প্রকাশ পায়নি তাই সর্বত্রই আলোচনা সমালোচনার ঝড় বইছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মাস্টার রোলে টিএলআর পদে কর্মরত একাধিক কর্মী সাংবাদিকদের জানান, এইএন সাইদুর রহমান খন্দকার আমাদের পেটে লাথি মেরে নতুনদের নিয়োগ দিয়ে প্রায় ৩কোটি টাকা লুটে নিয়েছে। আমাদের অধিকার আমরা ফিরে চাই। আমরা প্রশাসনের কাছে এই ঘটনার বিচার চাই।

এ বিষয়ে এইএন সহকারী প্রকৌশলী সাইদুর রহমান খন্দকারকে টিএলআর পদে টাকা নিয়ে পুরাতনদের বঞ্চিত করে নতুনদের নিয়োগের কারন জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের নিউজ করতে নিষেধ করেন।

লালমনিরহাট রেল ডিভিশনের প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন এই ঘটনার বিষয়ে তার অফিসে একাধিক বার গিয়েও তার সাথে দেখা করা যায়নি।

Attachments area