সর্বশেষ :

টেকনাফে ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি ও সংবাদকর্মীর বাড়িতে ইয়াবা ব্যবসায়ীর হামলা : আহত- ৩

টেকনাফ প্রতিনিধি :টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ও হ্নীলার সংবাদকর্মীর
বাড়িতে ইয়াবা ব্যবসায়ী কর্তৃক বর্বরোচিত হামলার ঘটনা ঘটেছে।
হামলায় তার তিন ভাই-বোন আহত হয়েছে এবং বাড়ির ঘেরা বেড়া ভাংচুর
করেছে। এসময় নগদ টাকা, মোবাইল ও স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নেওয়াও
অভিযোগ পাওয়া গেছে।
গত শনিবার (৫ জুন) হ্নীলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ও দৈনিক বাঁকখালী
পত্রিকার হ্নীলা প্রতিনিধি মো. রফিকের ফুলের ডেইল এলাকায় তার বাড়ীতে
এঘটনাটি ঘটে। এঘটনায় টেকনাফ মডেল থানায় একটি অভিযোগ
দায়েরের প্রস্তুতি গ্রহন করেছে বলে জানা গেছে।
অভিযোগের সুত্রে জানা যায়, গত চার বছর পুর্বে হ্নীলা ইউনিয়নের
পানখালী এলাকার শাহীন নামের এক ব্যক্তির সাথে ফরিদ আলম প্রকাশ নুইয়ার
সহিত টাকা লেনদেন সংক্রান্ত বিষয়ে বিরোধ ছিল। উক্ত বিষয় নিয়ে ওই সময়ে
হ্নীলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ও হ্নীলা বাজার কর্মচারী ঐক্য পরিষদ এবং
মতসজীবি সমিতির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব থাকা কালে বিচার দিলে
মো. রফিকসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে শালিসী বৈঠক হয়। ওই দিন
বিচার নিষ্পত্তি না হওয়ায় পরবর্তী একটি বিচারের দিন ধার্য্য করা হয়।
পরে এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে রফিক জানতে পারে উক্ত বিষয়টি ছিল অবৈধ
ইয়াবা ব্যবসার লেনদেন। তাই ওই বিচার করতে পারবেনা মর্মে উভয় পক্ষকে সাফ
জানিয়ে দেয় এবং ওই সময়ে সাবেক ওসি প্রদীপের ভয়ে বাদী-বিবাদী ফরিদ
আলম প্রকাশ নুইয়া ও শাহীন এলাকা ছাড়া হয়ে যায়। পরে সাবেক ওসি
কারাগারে গেলে ওরা ফের এলাকায় চলে আসে এবং গত ৪ জুন বিকালে উক্ত
লেনদেনের টাকা বিচারক মো. রফিক থেকে দাবী করে ফরিদ আলম নুইয়া।
এনিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে ওই বিষয়কে কেন্দ্র করে
গত ৫ জুন সন্ধ্যা ৭টার দিকে ফরিদ আলম প্রকাশ নুইয়ার নেতৃত্বে ১০-১৫
জন স্বসস্ত্র সন্ত্রাসী দা, কিরিছ , লাঠি সোটা ও লোহার রড় নিয়ে মো.
রফিকের বসত ভিটায় হামলা চালিয়ে ঘেরা বেড়া ক্ষতি সাধন করলে তার ছোট
ভাই রিদোয়ান রশিদ মোনাফ (২৪) এতে প্রদান করে। এসময় তাকে
এলোপাতারি বেদড়ক মারধর করে এবং তার মানি ব্যাগে থাকা সাড়ে ১৫
হাজার টাকাসহ দুইটি ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক হ্নীলা শাখা ও
আল আরাফা ইসলামি ব্যাংক টেকনাফ শাখার দুইটি খালী চেক এবং একটি
ঙচচঙ স্মার্ট ফোন জোর পূর্বক ছিনিয়ে নেয়। তখন তার ছোট ভাই
ইমরানুল ইউসুফ (১ ) ও ছোট বোন তছলিমা (২০) তাকে উদ্ধার করার জন্য
এগিয়ে আসলে তাদেরও মারধর করে ১ ভরি ওজনের স্বর্ণের গলার চেইন, একটি

ঙচচঙ এনড্রয়েট সেট ছিনিয়ে নেয়। এসময় তছলিমাকে শ্লীলতাহানির
চেষ্টা করে। বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে রফিক খবর পেয়ে এলাকার গণ্যমান্য
লোকজনসহ তার বাড়ীতে যাওয়ার পূর্বে ফরিদ আলম প্রকাশ নুইয়া দলবল নিয়ে
সটকে পড়ে। পরে এলাকার লোকজনের সহযোগীতায় আহতদের টেকনাফ
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। রিদোয়ানের অবস্থা আশংকাজনক
হওয়ায় কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে।
বর্তমানে সে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এব্যাপারে
টেকনাফ মডেল থানায় রফিকের ভাই মো. সেলিম উদ্দিন বাদী হয়ে ফরিদ আলম
প্রকাশ নুইয়াকে প্রধান আসামী করে গোদাম পাড়ার শাহরুখ খান (২৫)
মো. রফিক প্রকাশ কালাইয়া (৩১), সাদ্দাম হোসেন (৪০), মো. শফিক
প্রকাশ লালাইয়া (২৮), সাকিবুল হাসান ( ১৮ ), আক্তার হোসেন (২৮),
ওয়াব্রাং এলাকার আবদুর রশিদ প্রকাশ কালাইয়া (৩২), মো. আরমান খান (২৯),
আয়ুব খান (২৬) ১০ জনকে নামীয় ও ৪-৫ জনকে অজ্ঞাত অভিযুক্ত করে
অভিযোগ দায়ের করে।
উল্লেখ্য যে, অভিযুক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ীর ফরিদুল আলম ওরফে নুইয়ার বিরুদ্ধে
মাদকের একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানা গেছে।
এব্যাপারে টেকনাফ মডেল থানার অপারেশন অফিসার খোরশেদ আলমের কাছে
জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি অবগত রয়েছেন বলে জানান।