আটোয়ারীতে নিজস্ব উদ্যোগে বৃক্ষ রোপনের ভ্রাম্যমাণ প্রচারণা !

আটোয়ারী(পঞ্চগড়) প্রতিনিধি ঃ পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে পরিবেশ রক্ষার্থে
নিজস্ব উদ্যোগে বৃক্ষ রোপনে উদ্বুদ্ধকরণ ও জনসচেতনতামুলক ভ্রাম্যমান প্রচারনা
চালাচ্ছেন আটোয়ারী উপজেলার রসেয়া গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদ-এর পুত্র
,গাজিপুর সরকারি মহিলা কলেজের গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক বিসিএস
(সাধারণ শিক্ষা) ২৪তম ব্যাচ মোঃ আমিনুল ইসলাম তিতাস। তিনি বৃক্ষের
উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সম্বলিত ফেস্টুন দ্বারা বেস্টিত চার চাকা
বিশিষ্ট একটি প্রচারণা বক্স তৈরী করে পায়ে হেঁটে বৃক্ষ রোপনের ভ্রাম্যমান
প্রচারনা চালান। ইতিমধ্যে তিনি আটোয়ারী উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজার,
উপজেলা পরিষদ চত্ত¡র, প্রেসক্লাব, পল্লী বিদ্যুৎ মোড়, কিসমত রেল স্টেশন ,ফকিরগঞ্জ
বাজার সহ বিভিন্ন জনসমাগম স্পটে প্রচারনা চালিয়েছেন। তিতাস,
নিরলসভাবে প্রচারনা বক্স নিয়ে স্পটে দাড়িয়ে বৃক্ষ রোপনের সুফল সম্পর্কে
সাধারন মানুষকে ধারনা দিয়ে যাচ্ছেন। তিতাস বলেন, গাছ ছাড়া জীবন অসম্ভব।
বেঁচে থাকার জন্য আমাদের যা কিছু প্রয়োজন তার প্রত্যেকটি উপাদান প্রত্যক্ষ
বা পরোক্ষভাবে আমরা গাছ থেকে পেয়ে থাকি। তিনি জন্মদিন, বিয়ে বা বিশেষ
কোন দিবসে গাছ উপহার দেওয়ার কথাও বিশ্লেষন করেন। তিনি বলেন, গাছ
লাগানো ও গাছের পরিচর্যা করা অনেক বড় পূণ্যের কাজ। কারণ হিসেবে উল্লেখ
করেছেন, গাছ নিয়মিত অক্সিজেন সরবরাহ করে, কার্বনডাই অক্সাইড শোষন করে,
সুশীতল ছায়া প্রদান করে, ছায়া ও প্রশ্বেদনের মাধ্যমে বাতাস ঠান্ডা রাখে, পশু-
পাখিকে আশ্রয় দেয়, প্রাকৃতিক সুরক্ষা দেয় এবং প্রাকৃতিক শোভা বৃদ্ধি
করে। শুধু তাই নয়, গাছ বায়ুর তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ , খাবার সরবরাহ,কাপড় তৈরীর
কাঁচামাল, কাগজ তৈরীর কাঁচামাল, ঔষধ তৈরীর কাঁচামাল, বাড়ীর আসবাব পত্র তৈরী
সহ অর্থ উপার্জনে সহায়তা করে। অধ্যাপক তিতাস বলেন,গাছ প্রদত্ত উপকারগুলি
প্রতি মহুর্তে গ্রহন করে আমরা বেঁচে আছি অথচ কখনো কি ভেবেছি যে,
আমি কতটা গাছ লাগিয়েছি ? নাকি অন্যের লাগানো গাছ প্রদত্ত উপকার ভোগ
করে প্রতি নিয়ত অন্যের কাছে দায়বদ্ধ হচ্ছি। তিনি বলেন, গাছ শুধু পরিবেশ রক্ষা
করে না- গাছ মানব জাতীকেও রক্ষা করে। যে কোন গাছ আমরা জমিতে কিংবা
বারান্দার টবে লাগালে সেটি যতদিন বেঁচে থাকবে, তা-থেকে পৃথিবীর
প্রাণিজগত বিভিন্ন উপকার প্রতিনিয়ত পেতেই থাকবে। যা হবে সদকায়ে
জারিয়া বা চলমান দান। তিনি সবাইকে গাছ লাগানোর আহবান জানান। অধ্যাপক
তিতাস বলেন, আমার প্রচারণায় ঠাকুরগাওঁয়ে বিভিন্ন গোরস্থানে প্রায় তিন
হাজার বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগানো হয়েছে। আটোয়ারীতেও

জনপ্রতিনিধি সহ বিভিন্ন পেশাজীবি মানুষকে গাছ লাগানোর আহবান
জানাচ্ছি। আমার প্রচারণায় উদ্বুদ্ধ হয়ে কেউ গাছ লাগালে আমার পরিশ্রম
স্বার্থক হবে। পরিবেশ রক্ষায় তার অভিনব কৌশলে গাছ লাগানোর প্রচারণাকে
এলাকাবাসী স্বাগত জানিয়েছেন।