নওগাঁয় সাত বছর বয়সী স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ- মামলা দায়ের 

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টারঃনওগাঁয় ৭ বছর বয়সী ২য় শ্রেণীতে পড়ুয়া এক স্কুল ছাত্রীকে নিজ শয়ন ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করেছেন ৪০ বছর বয়সী এক নারী লোভী ব্যাক্তি। ধর্ষণের শিকার শিশু ছাত্রীকে আহত অবস্থায় নওগাঁ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
শিশু ধর্ষণের এঘটনাটি ঘটেছে নওগাঁর সাপাহার উপজেলার গোয়ালা ইউনিয়নে। সে স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণীর ছাত্রী। এঘটনায় ঐ ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে ধর্ষক গ্রামের ইমামুল হক (৪০) নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে সাপাহার থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ২৬ মে বুধবার নওগাঁর সাপাহার উপজেলার গোয়ালা ইউনিয়নের সামসুদ্দীনের ছেলে ইমামুল হক (৪০) এর ৪ বছর বয়সী শিশুর সাথে খেলা করার জন্য প্রতিবেশীর ৭ বছর বয়সী ২য় শ্রেণীতে পড়ুয়া ছাত্রী তার বাড়ীতে যায়। খেলা করার এক পর্যায়ে বাড়ীতে কেউ না থাকায় সুযোগ বুঝে ইমামুল হক (৪০) কৌশলে শিশু ছাত্রী (৭) কে তার নিজ শয়ন ঘরে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করেন। ধর্ষনের কারনে শিশুর অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ শুরু হলে তাকে বিছানায় ফেলে রেখে ধর্ষক পালিয়ে যায়। এক পর্যায়ে রক্তাক্ত অবস্থায নিজ বাড়ীতে শিশুটি গিয়ে ঘটনাটি জানালে শিশুর স্বজনরা ঘটনাটি স্থানিয়দের অবগত করে শিশুকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করান। এঘটনায় সোমবার (৩১ মে) ঐ ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে সাপাহার থানায় নারী শিশু আইনের ৯(১) ধারায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১৭/৭৩।
এব্যাপারে সাপাহার থানার ওসি তারেকুর রহমান সরকার জানান, বিষয়টি নিয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। আসামী পলাতক থাকায় তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তবে দ্রুত গ্রেফতার করার জন্য পুলিশ তৎপর রয়েছে বলেও জানিয়েছেন ওসি।