আসছে মৌসুমি বায়ু, বিদায় নেবে তাপপ্রবাহ

অন্য যেকোনো বছরের চেয়ে এবার গরমে মানুষের কষ্ট ও ভোগান্তি বেড়েছে। মে মাসের শেষার্ধে চলে এসেছে, কিন্তু এখনও তীব্র গরম পিছু ছাড়েনি। আজও দেশের সাত জেলার ওপর দিয়ে তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। গরমের এই ভোগান্তি এ বছরের মতো শেষ হওয়ার ইঙ্গিত মিলেছে।

রোববার (৩০ মে) সকালে আবহাওয়া অধিদফতরের দেয়া তথ্যমতে, ৩ জুনের (বৃহস্পতিবার) মধ্যে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু দেশের টেকনাফ উপকূল ছুঁতে পারে। দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ুকেই মূলত বর্ষা বলা হয়। এই মৌসুমি বায়ু সারাদেশে ছড়িয়ে গেলে বর্ষাকালের বৃষ্টি শুরু হবে। জুনের মাঝামাঝি নাগাদ মৌসুমি বায়ু দেশে ছড়িয়ে যেতে পারে। বর্ষাকালের বৃষ্টি শুরু হলে তাপপ্রবাহ সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না।

এ বিষয়ে আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক জাগো নিউজকে বলেন, ‘দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের উপকূলে পৌঁছতে পারে বা স্পর্শ করবে। এই মৌসুমি বায়ু যখন পুরো বাংলাদেশ কাভার করবে, তখন বৃষ্টিপাত বাড়বে। দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ুটাই হচ্ছে বর্ষা বা বর্ষাকাল। মৌসুমি বায়ু সেট হলে সেটাকেই বর্ষাকাল বলে। তিন দিনের মধ্যে হয়তো এ বায়ু উপকূল স্পর্শ করবে। ধীরে ধীরে এটা উত্তর দিকে এগোবে। এভাবে এটা পুরো দেশ কাভার করবে। এটা কয়দিনে বাংলাদেশ কাভার করবে, সেটা এখনও পরিষ্কার নয়। আগে শুরু হলে পরে সেটা আমরা বলতে পারবো।’

তিনি বলেন, ‘এ মৌসুমে হয়তো তাপপ্রবাহের অবসান ঘটতে যাচ্ছে। কারণ বর্ষাকালে তো তাপপ্রবাহ সেভাবে থাকে না। তাপপ্রবাহ বিদায় নিচ্ছে, কিন্তু দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু পুরো দেশ কাভার করতে অনেক সময় জুনের মাঝামাঝি সময়ও লেগে যায়। কাভার নিলে হয়তো তাপপ্রবাহ থাকবে না। বৃষ্টিপাত কম হলে তাপপ্রবাহ হয়, কিন্তু সেটা দীর্ঘস্থায়ী হয় না, দু-একদিন পর তাপপ্রবাহ কেটে যায়।’

এদিকে আজ সকাল ৯টা পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে, এর বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত। রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের অনেক জায়গায়, ময়মনসিংহ, সিলেট ও খুলনা বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং ঢাকা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে, সেই সঙ্গে দেশের উত্তরাংশে বিক্ষিপ্তভাবে মাঝারি ধরনের ভারী বর্ষণ হতে পারে।

রাঙ্গামাটি, ফেনী, নোয়াখালী, চাঁদপুর, রংপুর, খুলনা ও যশোর জেলাসহ সিলেট বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে এবং দেশের উত্তর-পশ্চিমাংশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে। এ ছাড়া দেশের অন্যত্র সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে।

এই ২৪ ঘণ্টা পরবর্তী তিন দিনে বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বৃদ্ধি পেতে পারে। দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু টেকনাফ উপকূল পর্যন্ত বিস্তৃত বলেও জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।