বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা, নওগাঁর আম বাগান মালিকরা শেষ মহূর্তে বাস্ত সময় পার করছেন

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রির্পোটারঃ
চলতি মধুমাসে ফলের রাজা আম পাল্টে দিয়েছে নওগাঁ জেলার ভারতীয় সীমান্ত ঘেঁষা বরেন্দ্র ভূমির সভ্যতাকে। এক সময়ের ঠাঁঠাঁ বরেন্দ্র অঞ্চল নওগাঁর সাপাহার, পোরশা উপজেলায় এবার আমের বাম্পার ফলনেরও সম্ভাবনা রয়েছে বলে কৃষি অধিদফতর ও বাগান মালিকরা জানিয়েছেন।
গত বছরের করোনায় আমের ক্ষতি এবারে অনেকটায় পুশিয়ে নিতে পারবে বলেও ধারণা আমচাষীদের। নওগাঁর ভারতীয় সীমান্ত ঘেঁষা সাপাহার পোরশা উপজেলার বাগানে বাগানে ঝুলন্ত আমের দোল খাওয়া যেন এক মনমুগ্ধকর দৃশ্যের সৃষ্টি করেছে। সাপাহার ও পোরশার আম বাগানের মালিক ও সাংবাদিক তছলিম উদ্দীন, ডিএম রাশেদ, এম এ রইচ উদ্দীন সহ ওমর আলী, মমিনুল হক, শাহজাহান আলী সহ অসংখ্য আমচাষীরা জানান, এবছর আমের গুটি হওয়ার সময় ব্যাপক হারে প্রতিটি বাগানে আকষ্মিক এক শোষক পোকার আক্রমণ এর কারনে দিশেহারা হয়ে পড়েন বাগান মালিকরা, ওষুধের পর ওষুধ স্প্রে করেও কিছুতেই এই পোকার আক্রমণ ঠেকাতে না পেরে হতাশ হয়ে পড়েন তারা।
অবশেষে আম একটু বড় আকার ধারণ ( বাড়ার সাথে সাথে) প্রকৃতিগতভাবেই এই পোকার আক্রমনের হার অনেকাংশে কমতে শুরু করে এবং এক সময় নি:শেষ হয়ে যায়। তবে এই শোষক পোকার আক্রমণ ঠেকাতে প্রতিটি বাগান মালিমদের অতিরিক্ত অর্থ খোয়াতে হয়েছে, ফলে কিছুটা হলেও এবারে আমের উৎপাদন খরচ একটু বেশী হয়েছে বলেও বাগানমালিকরা জানান। বর্তমান সময় পর্যন্ত এলাকার প্রতিটি বাগানে ব্যাপক হারে আম রয়েছে বলে আম চাষী বাগান মালিকরা জানিয়েছেন। প্রতি শ্রেণীর আমের হারভেষ্টিং সময় পর্যন্ত আবহাওয়া আম চাষীদের অনুকুলে থাকলে ও আমের বাজার দর ভাল থাকলে এবারে এই নওগাঁয় আমের বাম্পার ফলনরসহ অধিক হারে লাভবান হবেন আম চাষীরা।
উপজেলা কৃষি দফতর ও অভিজ্ঞজনরা ঠিক এমনটিই ধারণা করছেন। সাপাহার উপজেলা কৃষিদফতর ও নওগাঁ জেলা কৃষি অধিদফতরেরের কর্মকর্তাগনের নিকট থেকে জানা গেছে, নওগাঁ জেলা জুড়ে যে আম উৎপাদন হয় তার সিংহ ভাগ উৎপাদন হয়ে থাকে সীমান্ত ঘেঁষা সাপাহার ও পোরশা উপজেলায়। এই জেলায় যতগুলি আম উৎপাদন হয়ে থাকে তার মধ্যে ৬০ ভাগ আম্রপলী ও বাকী ৪০ভাগ ফজলী, নাগফজলী, ল্যাংড়া, খিরশা, হিমসাগর সহ অন্য সকল প্রজাতির আম।
আরোও জানান, গতবছর আমের মৌসুমে জেলায় সর্বমোট ২৪হাজার ৭৫০হেক্টর জমিতে আমের চাষাবাদ হয়েছিল এবং ওই মৌসুমে এ জেলায় প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকার আম বানিজ্য হয়েছিল। তবে এবারে আমের ফলন ও চাষাবাদের পরিধি বৃদ্ধি পাওয়ায় গতবছরের রেকর্ডকে ছাড়িয়ে যাবে বলেও ধারণা করছেন তারা। এছাড়া সারা জেলার আম ক্রয় বিক্রয়ের জন্যও সর্ব বৃহৎ আমের মার্কেট গড়ে উঠেছে জেলার সাপাহার উপজেলায়।
মঙ্গলবার (২৫মে) নওগাঁ জেলায় আম সংগ্রহের শুভ উদ্বোধন সাপাহারেই অনুষ্ঠিত হবে বলে সাপাহার উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্যাহ আল মামুন জানিয়েছেন। আম ক্রয় বিক্রয়কে কেন্দ্র করে ইতোমধ্যেই সাপাহার উপজেলায় কয়েক কিলোমিটার এলাকা জুড়ে আমের আড়তঘর নির্মানে আড়ত মালিকগন ব্যস্ত সময় পার করছেন। বর্তমানে ফলের রাজা আম জেলার সকল মানুষের ভাগ্যের চাকা খুলে দিয়েছে এবং দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে নওগাঁ জেলা আমের বাণিজ্যিক রাজধানী বলেও পরিচিতি লাভ করেছে।