২৪-২৫ মে’র দিকে কমতে পারে তাপমাত্রা, মাস শেষে ঘূর্ণিঝড়

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে আবারও শুরু হয়েছে গরমের দাপট। গতকাল শুক্রবার দেশের অর্ধেকের বেশি অঞ্চলের ওপর দিয়ে তাপপ্রবাহ বয়ে গেছে। আজও প্রায় একই রকম তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। এদিকে এই গরমে ব্যাপক ভোগান্তিতে পড়েছেন নাগরিকরা।

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মতো রাজধানী ঢাকাতেও তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। গতকাল ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ফলে রোদের কারণে গতকাল বাইরে বের হওয়া বেশ কঠিন ছিল। যারা বাইরে ছিলেন, তাদের কষ্টের সীমা ছিল না। অনেকে অসুস্থ হয়ে পড়েন। যাদের এসি নেই, তাদের এই গরমে ঘরে টেকাও কঠিন হয়ে পড়েছে।

আজকেও সকাল থেকে ঢাকায় তীব্র রোদ। আবহাওয়া অধিফতর বলছে, গতকালের মতো আজও ঢাকায় তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন, এ মাসের শেষের দিকে দেশে ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানতে পারে। এর প্রভাব পড়ার আগ পর্যন্ত গরম কমার সম্ভাবনা নেই। আগামী ২৪-২৫ মে’র দিকে ঘূর্ণিঝড় মেঘ ছাড়তে শুরু করতে পারে। তখন দেশের তাপমাত্রা কমবে।

গতকালের মতো আজও সারাদেশের তাপমাত্রা প্রায় একই রকম থাকতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদ একে এম রুহুল কুদ্দুস। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, ‘সারাদেশেই তাপমাত্রা বেশি। দু-এক জায়গায় বৃষ্টি হয়েছে, সেসব জায়গায় তাপমাত্রা কিছুটা কম আছে। সেসব জায়গায়ও হয়তো তাপ বাড়বে। ২৪-২৫ মে’র দিকে দেশের তাপমাত্রা কমা শুরু করতে পারে।’

রুহুল কুদ্দুস আরও বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড় যখন উপকূলীয় এলাকার কাছাকাছি চলে আসবে, তখন তাপমাত্রা কমবে। মেঘ ছেড়ে দেয়া শুরু করবে।’

ঢাকায় গরমের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ঢাকার তাপমাত্রা বেড়েছে। গতকাল ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে। আজকেও গতকালের মতো তাপমাত্রা থাকার সম্ভাবনা আছে।’

আজ সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রাঙ্গামাটি, কুমিল্লা, চাঁদপুর, নোয়াখালী, ফেনী ও পাবনা জেলাসহ ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

বৃষ্টির বিষয়ে পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং কুমিল্লা ও নোয়াখালী অঞ্চলসহ ঢাকা ও খুলনা বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এ ছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় আবহাওয়া অফিস জানিয়েছিল, আগামী দুই দিনের মধ্যে উত্তর আন্দামান সাগর ও তৎসংলগ্ন পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় একটি লঘুচাপের সৃষ্টি হতে পারে। তার পরের পাঁচ দিনে বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বৃদ্ধি পেতে পারে।