কোভিড টিকা নেওয়ার পরই গা ব্যথা-জ্বর জ্বর ভাব, কীভাবে মিলবে স্বস্তি?

মারণ ভাইরাস করোনার সঙ্গে লড়াই করার একমাত্র হাতিয়ার টিকা। কিন্তু ভ্যাকসিন নিয়েও ভয়-ভীতি কম নেই। টিকা নেওয়ার পর কী কী পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে সেই আশঙ্কায় ভুগছেন অনেকে। এই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়েও ভুল ধারণা রয়েছে বিস্তর। টিকা নেওয়ার পর জ্বর এলেও কেউ কেউ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ভেবে বসেন। তাই সকলের আগে জানা দরকার টিকা নেওয়ার পর কী কী পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে।

টিকা নেওয়ার পর কী কী পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে

  • জ্বর
  • হালকা গা-হাত ব্যথা
  • মাথা ব্যথা
  • বমি-বমি ভাব
  • ক্লান্তিভাব

টিকা নেওয়া হাত ফুলে ব্যথা হওয়া

এই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলে চিন্তার কিছু নেই। চিকিৎসকেরা বলছেন, এগুলি খুব স্বাভাবিক। এধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলে চিন্তার কিছু নেই। বরং বুঝতে হবে আপনার শরীরে টিকা কাজ করছে। ৪৮ ঘণ্টা পর উপসর্গগুলি মিলিয়ে যায়। তবে এই ৪৮ ঘণ্টা কখনও কখনও খুবই অস্বস্তিকর হয়ে দাঁড়ায়। তাই সেই অস্বস্তি কাটানোর রইল কিছু উপায়।

ব্যথা কমবে কীভাবে?

যে হাতে টিকা নিয়েছেন সে হাতে ব্যথা হতে শুরু করে টিকাকরণের কয়েক ঘণ্টা পর থেকেই। অনেকের আবার সেই হাত সামান্য ফুলেও যায়। একে কোভিড আর্ম বলা হয়ে থাকে। তবে সেই ব্যথা কমাতে পেনকিলার না খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। তাঁরা বলছেন, নিজে থেকে কমতে দিন ব্যথা। তবে আরাম পেতে বরফ দেওয়া যেতে পারে। হাত যাতে শক্ত না হয়ে যায়, তাই হাত হালকা নাড়ানো যেতে পারে। প্রয়োজনে হাতের কিছু সহজ স্ট্রেচিংয়ের ব্যায়াম করতে পারেন।

জ্বর এলে কী করব?

টিকার প্রথম বা দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার পরই জ্বর আসতে পারে। চিকিৎসকরা বলছে, শরীরে তাপমাত্রা ১০০ ডিগ্রি ফারেনহাইটের নিচে থাকলে ওষুধ খাওয়ার প্রয়োজন নেই। তাপমাত্রা ১০০ ডিগ্রি ফারেনহাইটের উপরে উঠলে দরকারে প্যারাসিটামল খাওয়া যেতেই পারে। জলপট্টি দিয়েও কমানো যেতে পারে জ্বর। তবে ২দিনের বেশি জ্বর থাকলে, বা কাঁপুনি দিয়ে বারবার জ্বর এলে অবশ্যই চিকিৎসকের দ্বারস্থ হতে হবে।

বমিভাব কমাতে

টিকা নেওয়ার পর সাধারণ খাওয়া-দাওয়ায় কোনও নিষেধাজ্ঞা থাকে না। খুব তেল-মশলা দেওয়া রান্না বা প্রসেস্‌ড ফুড টিকা নেওয়ার পর কয়েকদিন না খাওয়াই ভাল। প্রচুর পরিমাণে জল খেতে হবে দিনভর। তার পরেও বমি-বমি ভাব লাগলে লেবু-জল, আদা চা বা পিপারমেন্ট টি খাওয়া যেতে পারে। তাতে স্বস্তি মেলে। এছাড়া দইয়ের ঘোল, ফলের রস, ডাবের জল, ফল-সবজির স্মুদির মতো পানীয় বেশিবার খাওয়া যেতেই পারে। এগুলি শরীরে এনার্জি জোগায়, ফলে ক্লান্তিও কাটে খানিকটা।

গা-হাতের ব্যথা কমাতে

টিকা নেওয়ার পরদিন বিশ্রামে থাকাই ভাল বলছেন চিকিৎসকদের একাংশ। বিশ্রাম পেলে ক্লান্তিভাব কাটার পাশাপাশি গা-হাতের ব্যথাও অনেকটা কমে। এছাড়া গা হাতের ব্যথা কমাতে গরম জলে নুন মিশিয়ে স্নান করতে পারেন। আবার দিনের শেষে এক গামলা জলে বাথ সল্ট মিশিয়ে পা ডুবিয়ে বেশ খানিকটা সময় বসে থাকলে আরাম পেতে পারেন। তবে নিয়মিত যোগা বা হালকা ব্যায়ামে মিলতে পারে উপকার।