সরাইল থানা হবে আগাছা পরগাছা ও দালালমুক্ত

 সরাইল প্রেসক্লাবের সাথে নবাগত ওসি’র মতবিনিময়
আব্দুল্লাহ আল নাঈমঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়াঃ
থানা হচ্ছে সকল শ্রেণি পেশার মানুষের সমান আইনি সহায়তা পাওয়ার জায়গা। এখানে সেবা নিতে কোন মাধ্যমের প্রয়োজন নেই। গরীব অসহায় সকলেই সরাসরি আমার সাথে কথা বলবেন। আমরা আপনাদের সেবা দিতে প্রস্তুত। আমি সরাইল থানাকে আগাছা পরগাছা ও দালালমুক্ত দেখতে চাই। সরাইল প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের কর্মরত পত্রিকা/ চ্যানেলের নাম ও মূল প্রফেশন জেনে খুবই খুশি হলাম। আপনাদের চেহারা ভাল কিছুর আশ্বাস দিচ্ছে। প্রত্যেকেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সর্বোচ্চ পদসহ বিভিন্ন পদে কর্মরত রয়েছেন। অনেকে ভাল ব্যবসা বাণিজ্য করছেন। কর্ম/ব্যবসার পাশাপাশি সাংবাদিকতায় সততা ও স্বচ্ছতা থাকে। আপনারা সকলেই সরাইলের জন্য সম্পদ। আপনারা অবশ্যই পুলিশের কর্মে অসঙ্গতি পেলে লিখবেন। কিন্তু সমাধান যোগ্য ছোট খাট বিষয় বা ভুল আলোচনা করে নিবেন। পারস্পরিক আলোচনায় সমাধান যোগ্য বিষয়ে রিপোর্ট না করাই ভাল। দায়িত্ব পালনকালে আমাদের প্রত্যেককে দেশের স্বার্থকে আগে প্রাধান্য দিতে হবে। দেশ প্রেমে সকলকে উদ্ভূদ্ধ হতে হবে। প্রকৃত সাংবাদিক দীর্ঘ সময় ও গভীর রাতে থানায় আড্ডা দিবে না। আর থানা গল্প করার জায়গা নয়। অপরাধ দমন, মাদক নিয়ন্ত্রণ, দাঙ্গা প্রতিরোধসহ সকল কাজে আপনারা তথ্য ও পরামর্শ দিয়ে আমাকে সহযোগিতা করবেন। কথা নয় আমি কাজে বিশ্বাসী।
বুধবার (১২ মে) বিকালে সরাইল প্রেসক্লাবের সাথে বিনিময় কালে উপরোল্লেখিত কথা গুলো বলেছেন থানায় সদ্য যোগদানকৃত অফিসার ইনচার্জ আসলাম হোসেন। সরাইল প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দ বলেন, অতীতের মত আমরা সরাইলের আইনশৃঙ্খলার উন্নয়নের স্বার্থে থানাকে অবশ্যই সহায়তা করে যাব। আপনি যোগদানের আগেই বা যোগদানের ঠিক পরই সুযোগ্য, চৌকুস ও মানবতার ফেরিওয়ালা ইত্যাদি বিশেষণ দিব না। আমাদের কাছে বিদেশী তেল নেই। সেটাও দিতে পারব না। আমরা ফেসবুকে কিছু লিখে নীচে বাকীটা আসছে….। বিস্তারিত পরে আসছে…..। মিডিয়া কর্মীরা অনুসন্ধান করছে ইত্যাদি বুঝি না। লিখিও না। তবে আপনার কর্ম যদি ভাল হয় অবশ্যই স্যালুট জানাব। ভাল অর্জন লিখব। সাধুবাদ জানাব। ফুলের কাজ করলে যাওয়ার সময় ফুল দিব। সংবাদ বা প্রতিবেদনে বিরূদ্ধে বলতে কিছু নেই। ঘটনা ঘটলে রিপোর্ট হবে। এটা হচ্ছে একজন গণমাধ্যম কর্মীর কাজ। মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. কবির হোসেন ও থানার দ্বিতীয় কর্মকর্তা এস আই মো. জাকির হোসেন খন্দকার। সরাইল প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের মধ্যে সভাপতি ও পাইলট বালিকা বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক মো. আইয়ুব খান, সহসভাপতি ও বিশিষ্ঠ ঠিকাদার মো. জুলকার নাঈন, সাবেক সভাপতি ও মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ বদর উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক ও মহিলা কলেজের প্রভাষক মোহাম্মদ মাহবুব খান, যুগ্ম সম্পাদক ও ইন্সুরেন্স কর্মকর্তা সৈয়দ কামরূজ্জামান ইউসুফ, সাংগঠনিক পাঠশালা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক সম্পাদক শেখ মো. ইব্রাহিম, দফতর সম্পাদক ও ব্যবসায়ি মোহাম্মদ মাসুদ, সদস্য ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান মো. সামছুল আরেফিন, ব্যবসায়ি তৌফিক আহমেদ তফছির ও সাংবাদিক (ব্যবসায়ি) দীপক কুমার দেবনাথ উপসি’ত ছিলেন।
প্রসঙ্গত: গত সোমবার (১০ মে) সরাইল থানার সদ্য সাবেক অফিসার ইনচার্জ এএমএম নাজমুল আহমেদকে কর্তৃপক্ষ বরিশাল রেঞ্জে বদলির আদেশ দেন। আর সরাইল থানায় পুষ্টিং দেন আসলাম হোসেনকে। আসলাম হোসেন গত মঙ্গলবার (১১ মে) দায়িত্ব গ্রহন করেছেন।