নরসিংদীর আলোকবালিতে দীর্ঘদিনের বিরোধ মীমাংসা

লেখক: তানিম টিভি
প্রকাশ: ১২ মাস আগে

আশিকুর রহমান নিজস্ব প্রতিনিধি :- নরসিংদী সদর উপজেলার আলোকবালি ইউনিয়নে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় ও দীর্ঘদিনে বিরোধ মীমাংসা হয়। গত ১১ জুন শুক্রবার বিকাল ৪ টায় আলোকবালি ইউনিয়নের নেকজানপুর ঈদগা মাঠে সর্বদলীয় ঐক্য পরিষদের ব্যানারে নাগরিক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আলোকবালি ইউনিয়নের কৃতিসন্তান বিশিষ্ট শিল্পপতি, রাজনীতিবিদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ, সমাজ সেবক আলহাজ্ব আশরাফ হোসেন সরকার, বিশেষ অতিথি ছিলেন, আলোকবালি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন সরকার দিপু, বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও জেলা জজ কোর্টের এপিপি এডভোকেট আসাদুল্লাহ, নরসিংদী সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি মিয়া মো. মন্জ্ঞুর, বিশিষ্ট ব্যবসায়ি কাইয়ূম সরকার, সাবেক জেলা যুবলীগ নেতা সুভাষ সাহা, রাজনীতিবিদ ফাইয়িম সিদ্দিকী,।

প্রধান অতিথি আশরাফ সরকার বলেন :- আলোকবালি ইউনিয়নের মানুষ শান্ত প্রিয়। কিছু কুচক্রী মহল আলোকবালি ইউনিয়নকে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে শান্তি বিনষ্ট করতে চায়। মিথ্যাকে সত্য, সত্যকে মিথ্যা বলে দাঙ্গার সৃষ্টি করে ফয়দা হাচ্ছিল করতে চায়। তাদেরকে জানাই তিরস্কার। নরসিংদী সদর আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য লে. কর্ণেল অব. মো. নজরুল ইসলাম হিরু সাহেব একজন শান্তিপ্রিয় মানুষ। তিনি কখনও বিশৃঙ্খলা চান না। তিনি শান্তিতে বিশ্বাসী। তিনি ইউনিয়নবাসীর শান্তির জন্য যেকোন বিনিময়ে শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে চান। তাই ইউনিয়নবাসীর কথা চিন্তা করে আজ এখানে আমরা সবাই একত্রিত্ব হয়েছি। এমপি সাহেবের কথা মতো আপনারা দীর্ঘদিন যাবত যে দাঙ্গা, হাঙ্গামায় লিপ্ত হয়েছিলেন আজ তার বিরোধ মীমাংসা হলো। কি পান আপনারা এ দাঙ্গা হাঙ্গামা করে? ক্ষতির পাল্লা আপনাদেরই।

আজ থেকে আপনারা একের অপরের ভাই। ছোট খাটো কিছু বিশৃঙ্খলা দেখা দিলে সমাজের মাধ্যমেই মীমাংসা করে নিবেন। বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত ও মো. নজরুল ইসলাম হিরু সাহেব এর হাত কে শক্তিশালী করতে হলে এবং ইউনিয়নের উন্নয়ন আরও বেগবান করতে চাইলে দাঙ্গা হাঙ্গামা পরিহার করতে হবে। তিনি আরও বলেন, পরিশেষে একটি কথা বলে যেতে চাই মো. নজরুল ইসলাম হিরু (এমপি) ছাড়া বিকল্প নাই। এসময় উক্ত ইউনিয়নের রশিদ মেম্বার, নাছির মেম্বার, ইমাম হাসান মেম্বার আলম হোসেন মেম্বার সহ উপস্থিত ইউনিয়নের গণমান্য ব্যক্তিবর্গ এর সামনে উক্ত দুই গ্রুপ একে অপরকে ফুলের মাল্য দিয়ে বরণ করে নেয়।