ঢাকাসোমবার , ১৭ জানুয়ারি ২০২২
  1. অনান্য
  2. অর্থ ও বাণিজ্য
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. ইসলাম
  7. কিশোরগঞ্জ
  8. কুড়িগ্রাম
  9. কুমিল্লা
  10. কুষ্টিয়া
  11. কৃষি
  12. খোলা কলাম
  13. গাইবান্ধা
  14. গাজীপুর
  15. চাকরি

নরসিংদীতে ভুল চিকিৎসায় মৃত্যুর পথে গৃহবধূ

350
Tanim Tv
জানুয়ারি ১৭, ২০২২ ১০:৪৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

আশিকুর রহমান :- নরসিংদীর হলি লাইফ হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় সাকিনা নামে এক গৃহবধূ মৃত্যুর পথে। সম্প্রতি নরসিংদী শহরের জেলখানা মোড়ে অবস্থিত হলি লাইফ হাসপাতলে তার অস্ত্রোপাচারকালে ভুল চিকিৎসার কারণে বর্তমানে উক্ত মহিলা মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে বলে অভিযোগ করেন ওই গৃহবধূর স্বামী সজল মিয়া।
গৃহবধুর স্বামী সজল মিয়া বলেন :- ইবনে সিনা হাসপাতালের ডাক্তার বলছে তার জীবন মরণ বর্তমানে সম্পুর্ণ সৃষ্টিকর্তার হাতে। হলি লাইফ হাসপাতালের ভুল চিকিৎসার ফলে ওই গৃহবধূর স্বামী একটি বেসরকারি স্কুলের স্বল্প বেতনের দপ্তরিকে গুনতে হয়েছে অতিরিক্ত কয়েক লক্ষাধিক টাকা। গৃহবধূ সাকিনার পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, আব্দুল কাদির মোল্লা ইংলিশ মিডিয়াম ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের দপ্তরি সজল মিয়ার স্ত্রী সাকিনা বেগমের পিত্তথলিতে পাথর ধরা পড়ে। পিত্তথলি থেকে পাথর অপসারণ করতে স্বামী সজল মিয়া ভালো ডাক্তার দিয়ে চিকিৎসার মাধ্যমে ওই পাথর অপসারণ করতে তার
পূর্বপরিচিত বেসরকারি হলি লাইফ  হাসপাতালের পরিচালক রিপন মিয়ার সাথে যোগাযোগ করেন। সজল মিয়া আরও জানান যে, হাসপাতালের পরিচালক রিপন তাদের পূর্ব পরিচিত। আসা-যাওয়ার ফলে রিপনের সাথে তাদের মাঝে একটা সুসম্পর্ক গড়ে ওঠে। তিনি আরও জানান যে, তার পরিবারের লোকজন তাকে অগাধ বিশ্বাস করতো। আমার স্ত্রীর অসুস্থের বিষয়ে রিপনের সাথে আলোচনা করলে সে বলে আমার পরিচালনাধীন হলি লাইফ হাসপাতালে ভর্তি করানোর জন্য। আমি রিপনের পরামর্শ অনুযায়ী আমার স্ত্রী সাকিনা বেগমকে সেখানে ভর্তি করলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ চিকিৎসকের মাধ্যমে তার অস্ত্র পাচারের মাধ্যমে লেপিরোস্কপি করেন।
কিন্তু ডাক্তার লেপিরোস্কপি করার সময় যে স্থানে ক্লিপ করে তার  মুখ বড় কেটে ফেলায় কেটে ফেলা স্থানে ক্লিপ  করলে  তা ঠিকমত বন্ধ হয়নি এবং অন্য একটি স্থানে ছিদ্র করে ফেলেছে বলে তারা সাকিনাকে নিয়ে বর্তমানে যে ডাক্তারে কাছে চিকিৎসাধীন আছে তার কাছ থেকে জানতে পারেন বলে জানান তিনি। হলি লাইফ হাসপাতালের লেপিরোস্কপি করার সময় তিনদিন পর সাকিনাকে ছুটি দেয় কর্তব্যরত ডাক্তার।
যথারীতি তাকে বাড়ি নিয়ে যেতে বললে তারা বাড়ি নিয়ে আসেন। বাড়িতে নিয়ে আসলে কয়েক ঘন্টার মধ্যে অর্থাৎ সন্ধ্যায় রোগীর পেটে প্রচন্ড ব্যথা হতে থাকলে বিষয়টি রিপনকে জানালে তাকে পুনরায় হাসপাতালে নিয়ে আসার কথা বলেন।
হাসপাতালে আনার পর বিভিন্নভাবে পরীক্ষা নিরীক্ষা ও তার চিকিৎসা চলতে থাকে এভাবেই কেটে যায় কয়েকদিন। এদিকে রোগীর শারীরিক অবস্থা আরও অবনতি হতে থাকলে এ অবস্থায় দিশেহারা হয়ে ওঠা সজল রোগীর বিষয়ে রিপনে কাছে জানতে চাইলে রিপন সঠিকভাবে তেমন কিছু না বলে শুধু বলে দেখা যাক কি হয়।রোগীর অবস্থা যখন সংকটাপন্ন তখন তাকে দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল রেফার্ড করেন হাসপাতালের দায়িত্বরত ডাক্তার। সংকটাপন্ন অবস্থায় রোগীকে ঢাকা ইবনে সিনা হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করানো হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তিনি জানাতে পারেন রোগীর পেটের মধ্যে পাকস্থলী থেকে বিভিন্ন ধরনের ময়লা ঢুকে পড়েছে, সেগুলো অপসারণ করতে হলে খুব দ্রুত অপারেশন করতে হবে। আর অপারেশনের খরচও ব্যয়বহুল। এঅবস্থায় গরীব আর্থিক অস্বচ্ছল সজল ও তার আত্মীয়-স্বজনরা ডাক্তারের হাতে পায়ে ধরে অপারেশনের ব্যবস্থা করান। যথারীতি অপারেশন হয় এবং অপারেশনের পর ডাক্তার তাদেরকে জানায় তারা সাধ্যমত চেষ্টা করেছেন তবে রোগীর পেটের মধ্যে যে ছিদ্রটি হয়েছিল তা তিনি পুরোপুরি ভাবে বন্ধ করতে পারেননি তাই এক্ষেত্রে একটু বিপদের ভয় থাকতে পারে এবং যে কোনসময় খারাপ কিছু হয়ে যেতে পারে।
 ভুক্তভোগী সজল বলেন, আমি গরিব মানুষ নরসিংদী ও ঢাকা মিলিয়ে আমার প্রায় সাড়ে তিন লাখ টাকা খরচ হয়ে গেছে। তারপর আমার স্ত্রীর বাঁচা মরার কোন নিশ্চয়তা নেই। তার স্ত্রীর এই অবস্থার জন্য সজল হাসপাতালের পরিচালক রিপনকে দায়ী করে বলেন, তারা আমার স্ত্রীর জীবন নিয়ে খেলা করেছে তাদের কাছে জীবনের চেয়ে টাকার মূল্য অনেক বেশি। টাকার জন্যই আমার স্ত্রীর শারীরিক অবস্থা দিন দিন খারাপের দিকে গেল তারা পরীক্ষা-নিরীক্ষার নাম করে তাকে আটকে রেখেছে। আমি রিপন সহ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবি করছি। আমার মতো আর যেন এরকম রোগীর ক্ষতি না হয়।
সজল মিয়ার এক নিকট আত্মীয় বলেন, রোগীদের সাথে বাংলাদেশের কোথাও যেন সাকিনার মতন এই ঘটনা পুনরাবৃত্তি না হয় তার জন্য সরকার ও স্থানীয় প্রশাসনের কাছে হলি লাইফ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। এব্যাপারে হলি লাইফ হাসপাতালের পরিচালক রিপনের সাথে কথা বলতে গেলে তিনি বলেন, এখানে আমার তো কোন দোষ নেই দোষ হতে পারে ডাক্তারের। আপনারা ডাক্তারের সাথে কথা বলেন।
এবিষয়ে জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার নুরুল ইসলাম এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমরা এমন কোনো অভিযোগ পাইনি যদি অভিযোগ পাই তবে হাসপাতালের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

সাংবাদিক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি! তানিম টিভি লি:  এর  সংবাদ সংগ্রহ করার জন্য দেশের কিছু (জেলা ব্যতীত) সকল জেলা-উপজেলা পর্যায়ে কর্মঠ, সৎ ও সাহসী কিছু পুরুষ ও মহিলা সংবাদদাতা/প্রতিনিধি নিয়োগ করা হবে। আগ্রহী প্রার্থীরা পূর্ণাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত ই-মেইলে tanimtvltd.news1@gmail.com