দোয়ারাবাজারে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে মতবিনিময় সভা

লেখক: তানিম টিভি
প্রকাশ: ১০ মাস আগে

স্টাফ রিপোর্টার (দোয়ারাবাজার) সুনামগঞ্জ ঃ১৫ ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দোয়ারাবাজার উপজেলার আহ্বায়ক জনাব ফরিদ আহমেদ তারেক র সভাপতিত্বে উপজেলা আওয়ামীলীগের জৈষ্ঠ্য যুগ্ম আহ্বায়ক শামীমুল ইসলাম শামীমের সঞ্চালনায় ২ আগষ্ট সোমবার রাত ৮/৩০ মিনিটে ভার্চ্যুয়াল মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।
দোয়ারাবাজার উপজেলা আওয়ামীলীগ আহব্য়ক কমিটির সদস্যবৃন্দ সহ, সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দের অংশগ্রহন এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থানরত মুজিব আদর্শে আদর্শিত দোয়ারাবাজার উপজেলার গর্বিত সন্তানদের ভার্চ্যুয়াল উপস্থিতির মাধ্যমে প্রানবন্ত মতামত পেশ করেন। প্রায় চার ঘন্টা চলমান (ভার্চুয়াল) সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আব্দুল হান্নান, ফরিদ আহমেদ ইমন, রফিকুল ইসলাম রফিক,মাশুক রানা, ইব্রাহীম খলিল, আবু তাহের, সুরমা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মামুন খন্দকার,উপজেলা যুবলীগ আহ্বায়ক রোটারিয়ান আবুল হোসন, যুবলীগ নেতা তোফায়েল আহমেদ, সুরমা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি শফিকুর রহমান (অবসর প্রাপ্ত সেনা সদস্য) বাংলা বাজার ইউনিয়ন আওয়ামিলীগ সাধারন সম্পাদক ডাঃ আব্দুস ছামাদ, লক্ষিপুর ইউনিয়ন আওয়ামিলীগ সভাপতি, ডাঃ নজরুল ইসলাম,
উপজেলা সেচ্চাসেবকলীগ আহ্বায়ক, জহিরুল ইসলাম জহির, উপজেলা সেচ্চাসেবকলীগ যুগ্ম আহব্য়ক, কামাল পারভেজ।
ফ্রান্স থেকে সহিদ মিয়া, মালশিয়া থেকে ইকবাল হোসেন টুকু, সাবেক ছাত্রনেতা জিয়াউর রহমান,জিয়া, আলী আকবর ইমন সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
সভাপতির বক্তব্যে জানাব ফরিদ আহমেদ তারেক বলেন
শোকের মাস আগস্ট মাস। এই মাসে বাংলাদেশে সংঘটিত হয়েছে ইতিহাসের ভয়াবহতম হত্যাকাণ্ড ও নারকীয় গ্রেনেড হামলা। ১৫ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস। মানব সভ্যতার ইতিহাসে ঘৃণ্য ও নৃশংসতম হত্যাকাণ্ডের কালিমালিপ্ত বেদনাবিধূর শোকের দিন। ১৯৭৫ সালের এই দিনে মানবতার শত্রু প্রতিক্রিয়াশীল ঘাতকচক্রের হাতে বাঙালি জাতির মুক্তি আন্দোলনের মহানায়ক, বিশ্বের লাঞ্ছিত-বঞ্চিত-নিপীড়িত মানুষের মহান নেতা, বাংলা ও বাঙালির হাজার বছরের আরাধ্য পুরুষ, বাঙালির নিরন্তন প্রেরণার চিরন্তন উৎস, স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্রের স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়।
সেদিন ইতিহাসের নিষ্ঠুরতম এই হত্যাকাণ্ডে বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিনী, মহিয়সী নারী বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর একমাত্র ভ্রাতা শেখ আবু নাসের, জাতির পিতার জ্যেষ্ঠ পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন শেখ কামাল, দ্বিতীয় পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা লেফটেন্যান্ট  শেখ জামাল, কনিষ্ঠ পুত্র নিষ্পাপ শিশু শেখ রাসেল, নবপরিণীতা পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজী জামাল, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক শেখ ফজলুল হক মণি ও তাঁর অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী বেগম আরজু মণি, স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম সংগঠক ও জাতির পিতার ভগ্নিপতি আব্দুর রব সেরনিয়াবাত, তাঁর ছোট মেয়ে বেবী সেরনিয়াবাত, কনিষ্ঠ পুত্র আরিফ সেরনিয়াবাত, দৌহিত্র সুকান্ত আব্দুল্লাহ বাবু, ভাইয়ের ছেলে শহীদ সেরনিয়াবাত, আব্দুল নঈম খান রিন্টু, বঙ্গবন্ধুর প্রধান নিরাপত্তা অফিসার কর্নেল জামিল উদ্দিন আহমেদ ও কর্তব্যরত অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী নৃশংসভাবে নিহত হন।
সেদিন বিপথগামী সেনা সদস্যদের সংগঠিত ধানমন্ডির ৩২ নাম্বার বাড়ির রক্ত শ্রোতের বিবরন দিতে গিয়ে তিনি ডুকরে ডুকরে কান্না জরিত কন্ঠে বলেন আজও ৭৫ এর ১৫ই আগষ্টের বিভৎস হত্যাকান্ডে জড়িত নরপিচাশদের প্রেতাত্মা নব্য আওয়ামীগার হয়ে দলকে কলোশিত করার ঘৃন্য চেস্টায় মত্য রয়েছে।
মুজিব আদর্শে বিশ্বাসী নিবেদিত কর্মীদের নিয়ে দোয়ারাবাজার উপজেলা আওয়ামীলীগ, বিশ্ব মানবতার জননী, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশ বিনির্মানে ভ্যানগা্ড হয়ে দোয়ারাবাজার উপজেলা আওয়ামীলীগ থাকবে অগ্র সারিতে।
শোককে শক্তিতে পরিনত করে দীপ্ত শপথে জাতির পিতার আত্বার মাগফিরাত কামনা করে বাংলাদেশ আওয়ামিলীগের কেন্দ্রীয় নির্দেশনায় জাতীয় শোক দিবস পালন করবে দোয়ারাবাজার উপজেলা আওয়ামীলীগ ।
পরিশেষে তিনি আক্ষেপ করে বলেন, সোমবার দোয়ারাবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেয়াদ উত্তির্ন ঔষধ আগুন দিয়েপুড়িয়ে ধংস করার কারন কি?
যথা সময়ে দোয়ারাবাজার উপজেলা বাসীর চিকিৎসা সেবায় বিতরন করলে নিশ্চয় মেয়াদ উত্তির্ন হওয়ার প্রশ্নই আসতো না।
সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন সরকার। রাস্ট্রের বরাদ্দকৃত চিকিৎসা উপকরণ দোয়ারারাসীর হাতে তোলে না দিয়ে, মজুত রেখে মেয়াদ উত্তির্ন করার ঘৃন্যতম অপরাধের দায় উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জনাব দেলোয়ার হোসেন কোন ভাবেই এড়াতে পারেন না। সিভিল সার্জন ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত ক্রয় কমিটির সদস্য ছাতক দোয়ারার মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব মুহিবুর রহমান মানিক সাহেবের দৃস্টি আকর্ষণ করে, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জনাব দেলোয়ার হোসেনের আপসারন চেয়ে, সকলকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার উদাত্ত আহ্বান জানিয়ে ভার্চ্যুয়াল মতবিনিময় সভার সমাপ্তি ঘোষনা করেন।