ঢাকাশুক্রবার , ১৮ নভেম্বর ২০২২
  1. অনান্য
  2. অর্থ ও বাণিজ্য
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. ইসলাম
  7. কিশোরগঞ্জ
  8. কুড়িগ্রাম
  9. কুমিল্লা
  10. কুষ্টিয়া
  11. কৃষি
  12. খোলা কলাম
  13. গাইবান্ধা
  14. গাজীপুর
  15. চাকরি
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দুরুদ শরীফ পাঠের ফজিলত, ধারাবাহিক আলোচনা চতুর্থ পর্ব

350
তানিম টিভি
নভেম্বর ১৮, ২০২২ ৯:৪৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

দরুদ শরীফের আমল পুলসিরাত পারের সহায়ক হয়: হযরত আব্দুর রহমান ইবনে সামুরা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিত, একদিন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম গৃহের বাহিরে তাসরিফ আনলেন এবং এরশাদ করলেন আমি গত রাতে একটি আশ্চর্যজনক স্বপ্ন দেখেছি। আমার এক উম্মত পুলসিরাত দিয়ে ভয়ে কাঁপতে কাঁপতে পার হওয়ার চেষ্টা করছে। এ সময় দুরুদ শরীফ যা সে আমার উপর পাঠ করত তা এসে তার হাত ধরে তাকে সোজা করে নিরাপদে পুলসিরাত পার করে দিল। ( হাশিয়ায়ে দালাইলুল খায়রাত ৯১ পৃষ্ঠা)

দরুদ শরীফ পাঠের দ্বারা রোগ মুক্তি হয়: ইমাম শরফ উদ্দিন বুসিরী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি একবার পক্ষাগাত রোগে আক্রান্ত হয়ে যায়। অসংখ্য ডাক্তার ও হেকিম দেখানোর পরও যখন তিনি সুস্থ হচ্ছিলেন না তখন তিনি হৃদয়ের গভীর থেকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর উপর দরুদ শরীফ সম্বলিত অজস্র গুণগ্রাহী নিশ্রিত রাসূলে কারীম রউফুরুর রহিম সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লামের উপর ১৬২ লাইনের একটি কবিতা রচনা করেন সারা পৃথিবীতে যে কবিতাটি প্রসিদ্ধি লাভ করেছে “কাসিদায়ে বুরদা শরীফ” নামে মূলত কবিতাটির আসল নাম হল ” আল কাওয়েদু দুর্রিয়া ফি মাদাহি খাইরুল বারিয়াহ” তিনি যখন কবিতাটি লিখে ক্লান্ত পরিশ্রান্ত চোখে নিদ্রায় চলে গেলেন এমতাবস্থায় দুজাহানের বাদশা প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লামের জিয়ারত তিনি স্বপ্ন নসিব করলেন। তিনি স্বপ্নে দেখলেন নবী কারীম সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার গৃহে আগমন করেছেন এবং প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লামের পবিত্র নূরানী পা মোবারক দ্বারা তার শরীরের পক্ষাঘাত রোগস্ত স্থানে স্পর্শ করলেন এবং তাকে উঠে দাঁড়াতে বললেন অতঃপর প্রিয় নবী কারিম সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লাম যাবার বেলায় তাকে একটি চাদর মোবারক উপহার দিয়ে গেলেন এর কিছুক্ষণ পর যখন ইমাম শরফ উদ্দিন বূসিরী ঘুম থেকে জেগে উঠলেন তখন তিনি অনুভব করতে পারলেন যে তার গৃহে নবী করিম সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লামের পবিত্র শুভাগমন হয়েছে কেননা তিনি এক জান্নাতি খুশবু অনুভব করতে লাগলেন এবং স্বপ্নে নবী করিম সাঃ এর পবিত্র পা মোবারক তার শরীরে রোগা গ্রস্থ যেখানে যেখানে স্পর্শ করেছে সেই স্থানগুলো সম্পূর্ণরূপে সুস্থ হয়ে গিয়েছে এবং নবী কারীম সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লাম যাবার বেলায় যে চাদর মোবারক টি দিয়ে গিয়েছিল সেটিও সে তার শরীরের উপর পেয়ে গেলেন। আরবি এবং ফারসি ভাষায় চাদর কে বূরদা বলা হয়। যার ফলে তিনি রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কাছ থেকে প্রাপ্ত চাদর মোবারকের নামেই তার লিখিত কবিতাটির পুনরায় নামকরণ করেছেন। আর তিনিও দুরারোগ্য ব্যাধি থেকে একমাত্র শেফা বা সুস্থতা লাভ করলেন শুধুমাত্র প্রিয় নবী কারীম সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর উপর দরুদ শরীফ ও তার পবিত্র প্রশংসা বাণী প্রকাশের কারণে।

দুরুদ শরীফ পাঠের দ্বারা কারামত প্রকাশ পায়: হযরত আবু আব্দুল্লাহ মুহাম্মদ ইবনে সুলাইমান জাযূলী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি সুদূর আফ্রিকার মরক্কো থেকে তার ভক্তদের নিয়ে “ফাস” নামক শহরের একটি গ্রামে পৌঁছেন। সেখানে জোহরের নামাজের সময় শেষ হতে যাচ্ছে কিন্তু পানি না পাবার কারণে ওযু করতে পারছে না নামাজও পড়তে পারছেনা। অনেক খোঁজাখুঁজির পর একটি কূপ পেলেন কিন্তু বালতি ও রশি না থাকার কারণে কূপ থেকে পানি তুলতে পারছেন না। তিনি অত্যন্ত চিন্তিত হয়ে কূপের চারদিকে ঘুরতে লাগলেন। কিছুটা দূরেই তিনি একটি ঘর দেখতে পেলেন, সেখান থেকে ছোট্ট একটি বালিকা তার এই অবস্থা পর্যবেক্ষণ করছিল। হঠাৎ বালিকা টি তাকে প্রশ্ন করল হে আগন্তুক আপনার চিন্তিত হওয়ার কারণ কি? জবাবে তিনি বললেন আমি সুলাইমান জাযূলী জোহরের নামাজের সময় প্রায় শেষের দিকে কিন্তু আমি পানির অভাবে অজু করে নামাজ পড়তে পারছি না। তা শুনে মেয়েটি বলল আপনি এত বড় একজন বুজুর্গ ব্যক্তি কিন্তু এই সামান্য বিষয়ে আপনি অক্ষম হয়ে পড়েছেন? ধৈর্য ধরুন আমি আসছি, মেয়েটি এসে কোপে থুতু নিক্ষেপ করলেন সাথে সাথেই কূপের পানি উপচে পড়ে প্রবাহিত হতে লাগলো। এই দৃশ্য দেখে তিনি হতবম্ব হয়ে গেলেন অজু করে নামাজ আদায় করলেন এবং সেই বালিকার গৃহের নিকট গমন করলেন, গৃহের দরজায় করাঘাত করলেন। গৃহের ভিতর থেকে জানতে চাওয়া হলো কে? তিনি পরিচয় দিয়ে বললেন আমি তোমার কাছে থেকে এই অসম্ভব জ্ঞান শিখার উদ্দেশ্যে আগমন করেছি, তোমাকে সেই সত্তার শপথ যিনি তোমাকে সৃষ্টি করেছেন এবং হেদায়েত দান করেছেন এবং হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু তা’আলা আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর শপথ যার সাফায়াতের তুমি আশা রাখ, তুমি আমাকে বল এই জ্ঞান সম্পর্কে, জবাবে ছোট্ট বালিকাটি বললেন যদি আপনি আমাকে এত বড় সপথ না দিতেন তাহলে আমি কখনোই আপনাকে তা বলতাম না। তখন মেয়েটি বললেন আমি বিশেষ একটি দরুদ শরীফ তেলাওয়াত করি যার ফজিলত এর কারণে আমার মাধ্যমে এই অসম্ভব কারামত বা অলৌকিকতা প্রকাশ পেয়েছে। তখন সুলাইমান জাজুলী রহমাতুল্লাহি আলাইহি তার কাছ থেকে সেই দুরুদ শরীফটি শিখেনেন এবং তা পাঠের জন্য এজাজত গ্রহণ করেন। এই ঘটনার পরবর্তীতে হযরত সুলাইমান জাজুলী রাহমাতুল্লাহি তা’আলা আলাইহির মনের মধ্যে দরুদ শরীফের উপর একটি স্বতন্ত্র কিতাব লিখার ইচ্ছে প্রকাশ পায় যার ফলশ্রুতিতে তিনি পৃথিবী বিখ্যাত “দালাইলুল খাইরত” নামক দরুদ শরীফের উপর কিতাব রচনা করেন।

লেখক: হাফেজ মাওলানা মুফতি মূর্তাজা ইবনে মোস্তফা সালেহী।

পরিচালক: আল মোজাদদেরিয়া ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার ঢাকা।

সাংবাদিক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি! তানিম টিভি লি:  এর  সংবাদ সংগ্রহ করার জন্য দেশের কিছু (জেলা ব্যতীত) সকল জেলা-উপজেলা পর্যায়ে কর্মঠ, সৎ ও সাহসী কিছু পুরুষ ও মহিলা সংবাদদাতা/প্রতিনিধি নিয়োগ করা হবে। আগ্রহী প্রার্থীরা পূর্ণাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত ই-মেইলে tanimtvltd.news1@gmail.com