চাঁপাইনবাবগঞ্জে অপহরণ ও নির্যাতনের অপরাধে কথিত সাংবাদিক আলমগীর আটক

লেখক:
প্রকাশ: ১১ মাস আগে

জুলকার নাইন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ : রাস্তায় যাওয়ার পথে বিস্কুট ফ্যাক্টরির মালিককে অপহরণ করে নিজ অফিসে নিয়ে ব্যাপক মারধর ও ছিনতাই করার একদিন পর কথিত সাংবাদিক ও একটি অনলাইন পত্রিকার সম্পাদক আটক হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। সোমবার (১৪ জুন) সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার হরিপুর মহল্লার শরিফুল ইসলামের ছেলে মো. আলমগীর হোসেনকে গ্রেফতার করে সদর থানা পুলিশ। জেলা শহরের শিবতলা-চাইপাড়া এলাকার মো. সাবের আলী বাচ্চুর ছেলে বিস্কুট ফ্যাক্টরির মালিক মো. আব্দুল মাতিনকে (৩৮) অপহরণ ও নির্যাতনের অপরাধে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গুরুতর আহত আব্দুল মাতিনের ছোট ভাই মো. পারভেজ আলী রবিবার (১৩ জুন) রাতে সদর থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলা ও আহত ব্যবসায়ী আব্দুল মাতিনের পরিবার সূত্রে জানা যায়, গতমাসে রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার কামারপাড়া এলাকায় থাকা বিস্কুট ফ্যাক্টরিতে সাংবাদিক ও ম্যাজিস্ট্রেট সেজে চাঁদাবাজি করতে যায় আলমগীর হোসেন। পরে স্থানীয়রা তাকে আটক করে মারধর করে মুছলেখা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়। যা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক ও বিভিন্ন গণমাধ্যমে ব্যাপকভাবে প্রচার হয়। এই ঘটনার প্রতিশোধ হিসেবে গত রবিবার বিকেলে ব্যবসায়ী আব্দুল মাতিনকে অপহরণ করে আলমগীর হোসেন ও তার লোকজন।

গুরুতর আহত আব্দুল মাতিনের ছোট ভাই মো. পারভেজ আলী জানান, ভুয়া সাংবাদিক আলমগীরের সহযোগী শুভ ও আরও ৭-৮ জন লোকজন জেলা শহরের উপর রাজারামপুর মোড় হতে অগহরণ করে বিশ্বরোডমোড়স্থ তার অফিসে নিয়ে যায়। সেখানে দরজা বন্ধ করে লোহার রড স্ট্যাম্প, লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি মারধর করে। মারধর ছাড়াও পকেটে থাকা ৮ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এছাড়াও স্যামসাং ও ভিভো দুটি মোবাইল ও হিরো মোটরসাইকেল ছিনতাই করে তারা। এমনকি ১০০ টাকার ৩টি ফাঁকা স্ট্যাম্পে সাক্ষর নেয় আব্দুল মাতিনের।

পরে গুরুতর আহত অবস্থায় ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়।

সদর মডেল থানার অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মোজাফফর হোসেন জানান, একজন ব্যবসায়ীকে অপহরণ ও নির্যাতনের মামলায় আলমগীরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে।