ঢাকামঙ্গলবার , ৩১ আগস্ট ২০২১
  1. অনান্য
  2. অর্থ ও বাণিজ্য
  3. অর্থনীতি
  4. আইন-আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. ইসলাম
  7. কিশোরগঞ্জ
  8. কুড়িগ্রাম
  9. কুমিল্লা
  10. কুষ্টিয়া
  11. কৃষি
  12. খেলাধুলা
  13. খোলা কলাম
  14. গাইবান্ধা
  15. গাজীপুর
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গোপালগঞ্জে এমপিওভুক্ত ও চাকুরী দেওয়ার প্রলোভনে টাকা নেওয়ার অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে

350
Tanim Tv
আগস্ট ৩১, ২০২১ ২:২০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মনির মোল্যা,গোপালগঞ্জ : আয়া থেকে শিক্ষক সকলকেই এমপিও ভুক্ত করার জন্য লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ স্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। টাকা নেওয়ার কথা স্বীকারও করেছেন ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক। গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার ডালনিয়া আই,এ উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক বীজন কান্তি মল্লিক ওই স্কুলের আয়া (চাকুরী প্রর্থী) সাবানা বেগম, নৈশ প্রহরী জামাত আলী মোল্লা, মালি কামরুল মোল্লা ও সহকারী শিক্ষক (আইসিটি) বাবু লাল মন্ডলের কাছ থেকে দুই লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

আয়া চাকুরী প্রর্থী সাবানা বেগম অভিযোগ করে বলেন, আগের আয়ার সাথে আমি মাঝে মাঝে স্কুলে আসিতাম। তিনি মারা যাওয়ার পরে আমি প্রধান শিক্ষকের কাছে আয়ার চাকুরর জন্য আসিলে তিনি আমার কাছে ২লক্ষ টাকা চায়। আমি অসহায় বিধবা বলে আকুতি করলে তিনি ৫০হাজার টাকা কমে ১লক্ষ ৫০ হাজার টাকায় আমাকে চাকুরি দিবেন মর্মে আমার কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা অগ্রিম নেয় এক বছর আগে। চাকুরী তো আমি পেলাম না আমার টাকা ফেরত পেলাম না। আমি বিধবা মানুষ আমার ছেলেমেয়েদের নিয়ে অনেক কষ্টে দিন যাপন করছি।

নৈশ প্রহরী জামাত আলী মোল্লা বলেন, আমি বেতন ছাড়া অনেক দিন যাবৎ এখানে কাজ করছি। আমাকে এমপিওভুক্ত করার জন্য প্রধান শিক্ষক ১১হাজার টাকা নিয়েছে। আমি অসহায় গরিব মানুষ এমপিওভুক্ত হলাম না টাকাও ফেরত পেলাম না।
মালি কামরুল মোল্লা বলেন, আমাকেও এমপিওভুক্ত করার জন্য প্রধান শিক্ষক বীজন কান্তি মল্লিক ৬হাজার টাকা নিয়েছে। আমিও এমপিও ভুক্ত হতে পারলাম না।
স্কুলের আইসিটি শিক্ষক বাবুলাল মন্ডল বলেন, আমি ২০১৬ সাল থেকে স্কুলে চাকুরী করছি। প্রধান শিক্ষক গত বছর আমার কাছ থেকে ১লক্ষ ৫০ হাজার টাকা নিয়ে বোর্ডে যোগাযোগ করে আমাকে এমপিও ভুক্ত করে দিয়েছেন।

ডালনিয়া আইএ উচ্চ বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি গাউছ আলী খান বলেন, “প্রধান শিক্ষক স্কুলের আয়া, নৈশ প্রহরী, মালী ও সহকারী শিক্ষকদের কাছ থেকে যে টাকা নিছেন তা আদৌ জানি না আমি । গত ১৮ই আগষ্ট তাহারা আমার কাছে অভিযোগ করলে তাদের টাকা আমি প্রধান শিক্ষককে ফেরৎ দিতে বলেছি। কিন্ত তিনি তাদের টাকা কী কারনে ফেরৎ দিচ্ছে না আমি জানি না।”

তিনি আরও বলেন, “এর আগেও তিনি ২৮ জন শিক্ষার্থীদের কাছে উপবৃত্তি অনলাইন করার জন্য ১৫০ টাকা করে নিয়েছেন। পরে আমি প্রতিবাদ করলে ১০০ টাকা করে তাদের ফেরৎ দেয়।”
ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক বীজন কান্তি মল্লিক টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, এমপিওভুক্ত করার জন্য বিভিন্ন কাগজ পত্র তৈরি ও স্কান করে আবেদন করার জন্য নিয়েছি। তবে আয়া সাবানা বেগমকে আমি চিনিনা তার কাছ থেকে কোন টাকাও নেইনি। জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মুহাম্মদ সিদ্দিকুল ইসলাম বলেন, ডালনিয়া আই.এউচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের চাকুরি দেওয়া ও এমপিওভুক্ত করে দেওয়ার প্রলোভনে টাকা নেওয়ার ঘটনাটি আমাকে কেউ লিখিত বা মৌখিক জানায়নি। আপনাদের ম্যাধমে জেনেছি। ঘটনাটি সত্য হলে কতৃপক্ষ দিয়ে তদন্ত করে ব্যাবস্থা নিবো।

সাংবাদিক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি! তানিম টিভি লি:  এর  সংবাদ সংগ্রহ করার জন্য দেশের কিছু (জেলা ব্যতীত) সকল জেলা-উপজেলা পর্যায়ে কর্মঠ, সৎ ও সাহসী কিছু পুরুষ ও মহিলা সংবাদদাতা/প্রতিনিধি নিয়োগ করা হবে। আগ্রহী প্রার্থীরা পূর্ণাঙ্গ জীবন বৃত্তান্ত ই-মেইলে tanimtvltd.news1@gmail.com